1. admin@dailygoraishobvotha.com : dailygorai : Salim Takku
শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট করোনায় আক্রান্ত- গড়াই সভ্যতা কুষ্টিয়ায় শশুর বাড়িতে জামাইয়ের রহস্যজনক মৃত্যু !-গড়াই সভ্যতা কুষ্টিয়ায় বিধান হত্যায় জড়িতদের দ্রুত বিচার ও ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন- গড়াই সভ্যতা আহত হনুমান কে উদ্ধার করলো বিবিসিএফ কুষ্টিয়া টিম- গড়াই সভ্যতা কুষ্টিয়া কেন্দ্রীয় গোরস্থান মাদ্রাসায় ছাত্র ও শিক্ষকদের ইউনিফর্ম বিতরণ- গড়াই সভ্যতা ক্লুলেস হত্যার রহস্য উদঘাটন করলো কুষ্টিয়া জেলা পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিট, আটক ৩- গড়াই সভ্যতা কুষ্টিয়া জেলা পুলিশের নতুন সাইবার ক্রাইম ইউনিট চালু- গড়াই সভ্যতা কুষ্টিয়া কুমারখালীতে লস্কর গ্রুপ ও মন্ডল গ্রুপের সংঘর্ষ নিহত ১ আহত ১০-গড়াই সভ্যতা দুই এসআই নিহত: গাড়ি চালাচ্ছিলেন আসামি-গড়াই সভ্যতা কুষ্টিয়ায় হত্যা মামলায় ২ জনের যাবজ্জীবন ১ জনার আমৃত্যু কারাদন্ড- গড়াই সভ্যতা

কুষ্টিয়ায় সানসেট মাথায় পরে মাদ্রাসা ছাত্রের মৃত্যু- গড়াই সভ্যতা

মিলন খন্দকার
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৩ আগস্ট, ২০২১
  • ১০০ বার পঠিত

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার আইলচারায় বাড়ির গেটের সানসেট ভেঙে চাপা পড়ে মাদ্রাসা ছাত্র নিহত হয়েছে। নিহত ছাত্রের নাম মোহাম্মদ (১৩)। সে কুষ্টিয়ার বড় আইলচারা জামেয়া ইসলামিয়া বালক-বালিকা মাদ্রাসার হেফজখানার ছাত্র। সোমবার সকালে আইলচারা ইউনিয়নের বাগডাঙ্গায় এ ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, বড় আইলচারা জামেয়া ইসলামিয়া বালক-বালিকা মাদ্রাসার হেফজখানার ছাত্র মোহাম্মদ আলী(১৩) সকালে মাদ্রাসার শিক্ষক ও ছাত্রদের সাথে মাদ্রাসার জ্বালানি পাটকাঠি আনতে যায়।

আইলচারা ইউনিয়নের বাগডাঙ্গা মৃত হবিবর রহমানের পুত্র আব্দুল ওহাবের বাড়িতে গিয়ে গেটের সামনে গিয়ে সালাম দিয়ে বাড়ির লোকজনকে ডাকতে থাকেন। এ সময় আকস্মিকভাবে বাড়ির গেটের সানসেট ভেঙে ছাত্র মোহাম্মদ আলীর গায়ের উপর পড়ে তার নিচে সে চাপা পড়েন।
ছাত্র শিক্ষকরা মিলে তাকে বের করেন। ভারী শামশেটের নিচে চাপা পড়ে মাথা থেতলে যায়। মাথা দাঁত-মুথ ভেঙে প্রচুর রক্তক্ষরন হয়। মাদ্রাসা শিক্ষকরা তাকে উদ্ধার করে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে নেয়ার পথেই সে মারা যান।
নিহত মোহাম্মদের বাড়ি কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে। তার পিতার নাম মশিউর রহমান। নিহত মোহাম্মদের নানার বাড়ি কুমারখালীর ছেউড়িয়া জয়নাবাদ মন্ডলপাড়ায়। বাবা মশিউর তার মায়ের খোঁজখবর না নেওয়ায় সে তার নানার কাছে থেকেই লালিত-পালিত হন। মা ঢাকায় গার্মেন্টেসে কাজ করেন।
নানা কদর আলী তাকে ভরন-পোষন দিয়ে লেখাপড়া করাচ্ছিলেন। বড় আইলচারা জামেয়া ইসলামিয়া বালক-বালিকা মাদ্রাসায় হেফজ করছিলেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও খবর
© All rights reserved © 2019 daily gorai
Theme Customized BY LatestNews